ডাকাতিয়ার পাড় দখল করে ইট-বালুর ব্যবসা

চাঁদপুর প্রতিনিধি ।। চাঁদপুর শহরের বিআইডাব্লিউটি এর মোড় থেকে শুরু করে ট্রাকঘাট হয়ে লন্ডনঘাট পর্যন্ত বিশাল এলাকায় অবৈধভাবে দখল করে ইট, বালু, কংক্রিট ও সিমেন্টের ব্যবসা করে যাচ্ছে এক শ্রেণির অসাধু ব্যবসায়ী। তাদের এ ব্যবসার কারণে ডাকাতিয়া নদী দখলসহ এলাকায় পরিবেশের ভারসাম্য হারাচ্ছে। ধুলা-বালির কারণে পথচারী, স্কুল ও কলেজগামী শিশু ও বিভিন্ন বয়সী শিক্ষার্থীরা স্বাস্থ্যঝুঁকিতে পড়ছে। উড়ন্ত বালুর কারণে ক্ষতি হচ্ছে পাশের ১৫০ মেঘাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্র। এ এলাকায় এ ধরনের ব্যবসা করবেন না মর্মে ব্যবসায়ীরা তিন বছর আগে প্রশাসনের কাছে অঙ্গীকার করে ব্যবসা সরিয়ে নিলেও এখন আবার পূর্বের অবস্থা বিরাজ করছে।

সোমবার (২৫ সেপ্টেম্বর) দুপুরে ওই এলাকা ঘুরে ডাকাতিয়া নদীর পাড় দখল আর ব্যবসায়ীদের স্তুপ করে রাখা ইট, বালু ও কংক্রিটের চিত্র দেখা গেছে।

স্থানীয়দের সাথে আলাপ করে জানা গেছে, ২০১৪ সালে স্থানীয়দের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে এ এলাকাটি অবৈধ দখলমুক্ত করা হয়। এরপর বিআইডাব্লিউটি এর প্রকৌশল বিভাগ কাঁটা তারের প্রাচীর করে। সাধারণ মানুষ নদীর পাড়ে বসার জন্য মাচাও তৈরি করা হয়। কিন্তু এক বছর না যেতেই আবার এলাকাটি বেদখল হয়ে পড়ে। সেই থেকে এখন পর্যন্ত চলছে তাদের ব্যবসা।

ট্রাকঘাট এলাকার ব্যবসায়ী রফিকুল ইসলাম মিয়াজী ঢাকাটাইমসকে জানান, এ এলাকায় দুই শ্রেণির ইট বালুর ব্যবসায়ী রয়েছে। এক শ্রেণির ব্যবসায়ী শুধু সড়কপথে মালামাল বিক্রির ব্যবসা করেন। আবার আরেক শ্রেণি হচ্ছে নদীপথে এনে পাড়ে রেখে চলে যান। যারা নৌ-পথে মালামাল আনেন তারা বিআইডাব্লিউটি এর লোকদেরকে মালামাল উঠানোর জন্য টাকা দেন। কিন্তু নদীর পাড় দখল করে মালামাল মওজুদ রাখার জন্য কোনো টাকা দেয়া হয় না।

চাঁদপুর নদীবন্দরের বন্দর ও পরিবহন কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, ২০১৩ সাল থেকে স্থানীয় এলাকাবাসী এ এলাকা থেকে পরিবেশ ভারসাম্য নষ্টকারী ব্যবসা স্থানান্তর করার জন্য দাবি তুলেন। এরপর এলাকাবাসী মানববন্ধন ও প্রশাসনকে বিষয়টি অবহিত করেন। সে আলোকে ২০১৪ সালের মাঝামাঝি সময় জেলা প্রশাসনের সহযোগিতায় বিআইডাব্লিউটিএ ডাকাতিয়া নদীর পাড়সহ অবৈধ দখল উচ্ছেদ করেন। এর এক বছরের মধ্যেই পুনরায় ওই ব্যবসায়ীরা ব্যবসা চালু করেন।

চাঁদপুর নদীবন্দর এর উপ-পরিচালক এবং বন্দর ও পরিবহন কর্মকর্তা মোহাম্মদ মুস্তাফিজুর রহমান ঢাকাটাইমসকে বলেন, ‘আমি চাঁদপুরে আসার আগে দখলমুক্ত হয়। কিন্তু এখন আবার দখল হলেও আমরা কী করবো। যেসব ব্যবসায়ী মালামাল উঠাচ্ছেন তাদের কাছ থেকে আমরা একটা টাকা নিই। বন্দর এলাকায় মালামাল উঠাতে না পারলে ব্যবসায়ীরা কোথায় যাবেন।’

অবৈধভাবে ডাকাতিয়া নদীর পাড় কাঁটাতারের প্রাচীর ভেঙে দখল সম্পর্কে কোনো কিছু বলতে রাজি হননি এই কর্মকর্তা।

- কুমিল্লা নিউজ ২৪/মোঃ এমদাদুল হক রনি/২৬ সেপ্টেম্বের’২০১৭

 

দারোগা বাড়ি, উত্তর চর্থা
কুমিল্লা-৩৫০০, বাংলাদেশ
ই-মেইল: bdcomillanews24@gmail.com
নিউজ রুম: +8801976530514

প্রধান সম্পাদকঃ হুমায়ূন কবির রনি
নিউজরুম এডিটরঃ তানভীর খন্দকার দীপু
নূরুল আমিন জহির
ই-মেইলঃ editor@comillanews24.com