তেলাপোকার দুধে পুষ্টি বেশি

লাইফস্টাইলডেস্ক।। তেলাপোকার দুধ! শরীরে ঘিনঘিনে অনুভূতি হচ্ছে? আসলে প্রাণীটি অপছন্দের তালিকাতে বহু মানুষের। এহেন প্রাণীর দুধ খেতে যখন নিদান দেন গবেষকরা, তখন গা গুলিয়ে ওঠা খুব আশ্চর্যের কী?

কিন্তু ঘটনা হলো, যতই আপনার খারাপ লাগুক, এমনই দাবি গবেষকদের। তারা জানাচ্ছেন, তেলাপোকার দুধে রয়েছে সুস্বাদু মিল্ক ক্রিস্টাল। কেবল সুস্বাদুই নয়, তার গুণাগুণও অনেক বেশি। গরু বা মোষের দুধের চেয়ে তার গুণ অনেক বেশি

কিন্তু কিছু কিছু প্রাণী আছে যাদের দুধে আছে আপনার কল্পনার চাইতে ঢের বেশি পুষ্টিগুণ। আরও অবাক করা কথা এই অধিক পুষ্টির দুধ হয় সাধারণত অমেরুদণ্ডী প্রাণীর

বিজ্ঞানীরা সম্প্রতি আবিষ্কার করেছেন আরশোলা বা তেলাপোকাও দুধ দেয়। আর তা গরুর দুধের চাইতে প্রায় চার গুণ আর মানুষের দুধের চেয়ে তিন গুণ বেশি পুষ্টি সমৃদ্ধ

সম্প্রতিজার্নাল অফ ইন্টারন্যাশনাল ইউনিয়ন অফ ক্রিস্টালোগ্রাফিতে একটি সংখ্যায় এই বিষয়ে একটি গবেষণা নিবন্ধ প্রকাশ করেছে

ওই নিবন্ধে দাবি করা হয়েছে, আরশোলা শুধুই ডিম পাড়ে না, তাদের একটি বিশেষ প্রজাতি তাদের বাচ্চাদের স্তন্যপানও করায়। আর সেটা ভ্রুণ অবস্থাতেই। গবেষণাপত্রে বলা হয়েছে, আরশোলার ওই দুধে মানুষের স্তনদুগ্ধ বা গরু-মহিষ, ছাগল, ভেড়ার দুধের চেয়েও পুষ্টিগুণ অনেকটাই বেশি

তবে ওই বিশেষ প্রজাতির ওই আরশোলা সংখ্যায় এতটাই কম যে, তার দুধ দিয়ে মানুষের বিপুল চাহিদা মেটানো সম্ভব নয় কখনও

তবে প্রচলিত দুধের বিকল্প হয়ে ওঠা সম্ভব না হলেওঅত্যন্ত পুষ্টিকরসেই দুধের ট্যাবলেট, ক্যাপসুল বানানোটাই এখন অন্যতম লক্ষ্য গবেষকদের

গবেষণাটির প্রধান গবেষক সঞ্চারী বন্দ্যোপাধ্যায় জানান, বিশেষ প্রজাতির ওই আরশোলা নাম ডিপলোপ্টোরা পাঙ্কটেটা। এদের পাওয়া যায় একমাত্র হাওয়াই দ্বীপপুঞ্জে

প্রজননের পর এই আরশোলাদের একই সঙ্গে থেকে ১২টি ডিম জন্মায়। নারীদের মতো ওই আরশোলাদেরও থাকেব্রুড স্যাক সেখানেই ওই ডিমগুলি জমা থাকে

গবেষণায় দেখা গেছে, ‘ওইব্রুড স্যাক’- ডিমগুলো জমা হওয়ার ২০ দিন পর থেকেই ওই ভ্রুণগুলোর (এমব্রায়ো) মধ্যে দুধের ক্ষরণ হতে শুরু করে। আর ভ্রুণ (ডিম) গুলো তখনই সেই দুধ খেতে শুরু করে। তবে সব দুধটা তারা এক বারে খেয়ে সাবাড় করে দেয় না। বেশ কিছুটা করে জমিয়ে রাখে

সঞ্চারী জানান, গবেষণায় তারা নিশ্চিত হয়েছেন যে, ওই দুধ একেবারেই একটি সম্পূর্ণ খাদ্য বাকমপ্লিট ফুডবাব্যালান্সড ডায়েটবা সুষম খাদ্যও

কারণ, তার মধ্যে পুষ্টির জন্য প্রয়োজনীয় প্রোটিন, সুগার আর ফ্যাটি অ্যাসিড রয়েছে একই সঙ্গে। আর তা রয়েছে পর্যাপ্ত পরিমাণেই আর এই বাড়িত পুষ্টি মানুষের শরীরে কীভাবে কাজে লাগে সেই চেষ্টাই চালিয়ে যাচ্ছেন তারা

সঞ্চারীর কথায়, ‘আমরা শুধু আরশোলার দুধ আবিষ্কার করেই থেমে নেই। তাদের শরীরের ভেতর দুধের ক্ষরণের জন্য দায়ী যে জিন, আমরা সেটিকেও চিহ্নিত করেছি। ওই জিনটিই আরশোলারব্রুড স্যাক- প্রোটিন সংশ্লেষে মূল ভূমিকা নেয়।

আমরা সেই জিনটিকেই বার গবেষণাগারে কৃত্রিম ভাবে বানিয়ে সেটাকে ইস্টের মধ্যে ঢুকিয়ে দেখতে চাইছি, সেখানেও ওই জিনটি একই ধরনের প্রোটিন বানাতে পারে কি না।

দি পারে তা হলে, আগামী দিনে অনেক অনেক বেশি পুষ্টিকরপ্রোটিন শেক্স’, উন্নততর ক্যাপস্যুল, ট্যাবলেট আমরা বানাতে পারব।

তবে সঞ্চারীর সহযোগী গবেষক, ব্যাঙ্গালুরুরইনস্টিটিউট অফ স্টেম সেল বায়োলজি অ্যান্ড রিজেনারেটিভ মেডিসিনএর জ্যেষ্ঠ অধ্যাপক সুব্রহ্মণ্যম রামস্বামী বলছেন, এই নতুন প্রোটিনের আবিষ্কার আর তার থেকে পুষ্টিকর খাদ্য তৈরি করার মধ্যে একটা লম্বা পথ এখনও হাঁটা বাকি রয়েছে

এখন ইস্টে এটা কতটা কার্যকরী হয়, তা দেখতে হবে। দেখতে হবে, আরশোলার শরীরের ভেতর আর ইস্টে তা সমান ভাবে কার্যকর হয় কি না। দেখতে হবে ইস্টে আরও অনেক বেশি পরিমাণে সেই প্রোটিন বানানো যায় কি না।

- কুমিল্লানিউজডেক্স / সম্পাদনা/ জেনিফার পলি/ ১ জুলাই ১৮ইং

 

দারোগা বাড়ি, উত্তর চর্থা
কুমিল্লা-৩৫০০, বাংলাদেশ
ই-মেইল: bdcomillanews24@gmail.com
নিউজ রুম: +8801976530514

প্রধান সম্পাদকঃ হুমায়ূন কবির রনি
নিউজরুম এডিটরঃ তানভীর খন্দকার দীপু
ই-মেইলঃ editor@comillanews24.com