সব মায়ের প্রতি রইল ভালোবাসা ও শ্রদ্ধা।

মতামত   রাজিব বনিক 14-05-2017 12:00:00 AM font size decrease font size increase font size

বিশ্ব মা দিবস উপলক্ষে লিখেছেন রাজিব বনিক

 

 

মা, তুমি না হলে আমার জন্ম হতো না। আমি পৃথিবীর আলো দেখতাম না। তোমার মমতামাখা যত্ন না পেলে আজ হয়তো বেঁচেও থাকতাম না। মা,কষ্ট চেপে দুঃখ ভূলে, মুখে ধরে রাখো হাসি, মাগো ও মা তোমায় ভীষণ ভালোবাসি। আর আমার কাছে মাকে ভালোবাসতে কোন দিবসের দরকার হয় না। আমার মা,মধুর আমার মায়ের হাসি,আমার মা আমার পৃথিবী। গত কাল আমার মা আমার মঙ্গলের জন্য আমার সুখের জন্য আমি যেনো ভালোর জন্য বাসায় পুজা করে।কিন্তু আমার মা কতো দিন দরে অসুস্ত একবার কি আমার মা নিজের সুস্থতা কামনা করেছেন না । মায়েরা এমনি হয় নিজের নিশ্বাস থাকা পযন্ত সন্তানের সুখ কামনা করে যায়।আর আমরা মায়ের সুখের জন্য নিজেকে কতটুকু বিসর্জন দিয়ে থাকি।সত্যি কথা কি মা যখন আমার মঙ্গলের জন্য পুজায় মগ্ন থাকেন। তখন আমি আমার কথা চিন্তা না করে আমার মায়ের সুস্থতা কামনা করি। অনেক টা কান্না করেছি,আমার মা আমাকে এতটা ভালবাসে জানা সত্ত্বেও আমি আমার মা কে নিজের অজান্তে কষ্ট দিয়ে আসছি।আমি আর ভুল করতে চাইনা। মায়ের হাসি খুসি আনন্দে রাখতে আমার যাযা করার দরকার সেটাই করে যাবো। এই মহাবিশ্বে হয়তো সবকিছুর বিকল্প আছে, নেই শুধু মায়ের। পৃথিবীর সকল স্নেহ ও মমতাময়ী মাকে জানাই আমার শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা ।

যদি প্রশ্ন করা হয় পৃথিবীতে সবচেয়ে প্রিয় শব্দ কী? মনে হয়, শর্তহীনভাবে সবাই বলবে মা। সত্যিই তাই। এমনই বলার কথা। যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট আব্রাহাম লিংকন মাকে নিয়ে বলেছিলেন, ‘আমি যা কিছু পেয়েছি, যা কিছু হয়েছি, যা কিছু হতে আশা করি, এর সবকিছুর জন্য মায়ের কাছে ঋণী।

সিরিয়ার শরণার্থীশিবিরে একটি শিশু গাছে লিখেছিল, ‘মা, তুমি যেখানেই থাকো, সেখানেই আমাদের ঘর।সিরিয়া এখন এক জ্বলন্ত অগ্নিকুণ্ড। মরণফাঁদ। সেখানকার মা ও শিশুদের এর থেকে বেদনার সময় আর কখনো হয়তো ছিল না।

সিরিয়ার এক মা তাঁর ছোট সন্তানকে বাঁচানোর জন্য আশ্রয় নিয়েছেন শরণার্থীশিবিরে। শিশুটি বুঝেছিল, পৃথিবীতে মা-ই সব। তাই সে গাছে তার মনের কথা লিখেছিল। এক অন্তহীন শব্দ মা। শব্দটি নিরবধি বলতে থাকলেও যেন আরও বলার থেকে যায়।

রাশিয়ার একটি উপকথা আছে এমন: একজন প্রেমিক তাঁর প্রেমিকার মন পাওয়ার জন্য হৃদয়ের সর্বস্ব উজাড় করে দিচ্ছে। কিন্তু কোনোভাবেই প্রেমিকার মনে জমে থাকা বরফ গলছে না। প্রেমিকা প্রেমিককে শর্ত দিয়ে বলল, আজ সূর্য ডুবে যাওয়ার আগে তোমার মায়ের হৃপিণ্ডএনে দিতে পারলে আমার ভালোবাসা পাবে। সব শুনে মা ছেলের হাতে হৃপিণ্ড তুলে দিল। ছেলেটি দ্রুত দৌড়ে যাওয়ার সময় হঠা পড়ে গেল। সঙ্গে সঙ্গে হৃপিণ্ড থেকে শব্দ বের হলো, ‘বাবা, ব্যথা পেলি?’ সন্তানের সুখের জন্য মায়েরা যে সবকিছু করেন, এই উপকথা তারই প্রতীক।

আমাদের দেশের জনপদের মা-বাবাদের খুব কমই সুখের দিন ছিল। এই তো আশি-নব্বইয়ের দশকেও বেশির ভাগ মা-বাবাকে রাত-দিন কষ্ট করতে হতো শুধু এ জন্য যে তাঁদের সন্তান যেন তিনবেলা খেতে পায়। আমার মাও এমনি করে আমাদের জন্য কষ্ট করেছেন।

প্রিয় লেখক হ‌ুমায়ূন আহমেদ মা দিবসে বলেছিলেন, ‘মায়ের অভিশাপ কখনো সন্তানের গায়ে লাগে না। গায়ে লাগে দোয়া। হাঁসের গায়ের পানির মতো অভিশাপ ঝরে পড়ে যায়।পৃথিবীর সব মায়ের মন বোধ হয় এক ও অভিন্ন। সন্তানদের প্রতি তাঁদের এক নিরন্তর ভালোবাসা কাজ করে যায়।

সিরিয়ার আরেকটি ঘটনা না বলে পারছি না। আলেপ্পো শহরে বোমার বিস্ফোরণে ধ্বংস হয়েছে একটি ভবন। ধ্বংসস্তূপের মধ্য থেকে উঠে দাঁড়িয়েছে চার-পাঁচ বছরের একটি শিশু। পিটপিট করে সে তার চেনা পৃথিবীকে দেখার চেষ্টা করছে। চোখ-মুখ, সারা শরীর ঢাকা পড়েছে ধুলার আবরণে। শিশুটি শরীরে হাত দিয়ে দেখে ধুলার নিচে চাক চাক রক্ত জমাট বেঁধে আছে। সিএনএনের এক সংবাদ পাঠিকা এই শিশুটির খবর পড়ার সময় কেঁদে ফেলেন। আসলে মায়েদের হৃদয় এমনই। যেকোনো সন্তানের কষ্টই মায়েদের কষ্ট দেয়।

তাই বিশেষ কোনো দিনে মাকে ভালোবাসা বা শ্রদ্ধা জানানোর প্রয়োজন আছে কি না, সেটি হয়তো একটি অন্য বিতর্ক। ক্যালেন্ডারের দিনক্ষণ মেনে আর যা-ই হোক অন্তত মাকে ভালোবাসা যায় না। তবু সারা পৃথিবীর মানুষ আজ গভীর মমতায় মাকে স্মরণ করবে। জগতে মায়ের মতো প্রিয় মানুষ কেউ নেই। এই দিনটি স্মরণ করিয়ে দেয় মাকে ভালোবাসার কথা। তাঁর প্রতি সম্মান মর্যাদার কথা। প্রতিবছর মে মাসের দ্বিতীয় রোববার এ দিবস পালন করা হয়। আজ বিশ্ব মা দিবস। পৃথিবীর সব মায়ের প্রতি রইল অনিঃশেষ ভালোবাসা ও শ্রদ্ধা।

 

 

দারোগা বাড়ি, উত্তর চর্থা
কুমিল্লা-৩৫০০, বাংলাদেশ
ই-মেইল: bdcomillanews24@gmail.com
নিউজ রুম: +8801976530514

প্রধান সম্পাদকঃ হুমায়ূন কবির রনি
নিউজরুম এডিটরঃ তানভীর খন্দকার দীপু
নূরুল আমিন জহির
ই-মেইলঃ editor@comillanews24.com