কুমিল্লায় মোটরচালিত রিকশা অপসারন, বিকল্প ব্যবস্থার দাবী

মতামত   আনোয়ার হোসাইন 09-11-2016 12:00:00 AM font size decrease font size increase font size

আনোয়ার হোসাইনঃ দৃশ্যপট-১ঃ । বুধবার সকাল সোয়া ৯টা, ধর্মপুর রেলগেইটের পাশে বেশ কয়েকজন জেএসসি পরীক্ষার্থী দাঁড়িয়ে আছেন জিলা স্কুলে পরীক্ষা কেন্দ্রে যাবার জন্য। দীর্ঘক্ষন দাাঁড়িয়ে থেকে কোন যানবাহন না পেয়ে হাঁটা শুরু করলো।

রানীরবাজার পর্যন্ত হাঁটার পর অস্থিরতা বেড়ে গেল। সময় মতো কেন্দ্রে পৌঁছতে পারবে কিনা তা নিয়ে উৎকন্ঠা দেখা দিলো। শেষমেশ ৫০ টাকা দিয়ে অটোরিক্সায় ভাড়া করা হলো। আগে যেখানে ভাড়া ছিল ৩০ টাকা, সেখানে দিতে হলো ৫০ টাকা।

দৃশ্যপট-২ঃ। বুধবার বেলা ১২ টা,কুমিল্লার নগরীর রাজগঞ্জ থেকে চকবাজারে যাওয়ার জন্য একজন যাত্রী বেশ কিছুক্ষন রাস্তায় দাঁড়িয়ে আছেন। ভাড়া আগে যেখানে ছিল ৫ টাকা এদিন অটোবাইক চালকেরা চাইলেন ১০ টাকা। এনিয়ে চালকের সাথে তুমুল বাকবিতন্ডা। যাত্রী ৫ টাকার বেশী দেবে না, আর চালক ১০ টাকার কম নিবেন না। অনেক্ষন চলল বাকবিতন্ডা। পাশ থেকে কেউ প্রতিবাদ করল না। শেষে যাত্রী বেচারা ১৫ কেজি ওজনের ব্যাগ নিয়ে হাঁটা শুরু করলেন।

দৃর্শ্যপট-৩ঃ দুপুর দেড়টা। ধর্মসাগরের পশ্চিম পাড় থেকে সহ-পরিবারে শাসনগাছা যাওয়ার জন্য রাস্তায় দাঁড়িয়ে রইলেন জনৈক ভদ্রলোক। প্রায় ১ ঘন্টা দাঁড়িয়ে থাকার পর একটি অটোবাইক পেলেন। চালক ভাড়া হাঁকালেন ১শ টাকা। ধরকষাকষি করে নিরুপায় হয়ে ৮০ টাকায় নির্ধারন হলো। অথচ দু দিন আগেও যেখানে ভাড়া ছিল ৩০ টাকা।

গেল দুদিন এমন শত শত দৃর্শ্যপট কুমিল্লা নগরীর আনাচে কানাচে। হঠাৎ করে ট্রাফিক বিভাগ নগরী থেকে মোটরচালিত রিকশা অপসারণের কাজ শুরু করেছেন। কাজটিকে সাধুবাদ জানিয়েছেন নগরবাসি। এ বাহনটি শুধু বিদ্যুৎ খাদকই নয়, দুর্ঘটনারও অন্যতম কারন। অবৈধ হওয়ায় তা থেকে কোন রাজস্বও পাচ্ছে না সিটি করপোরেশন। একটি দুটি করে এর সংখ্যা ৩০ হাজার অতিক্রম করে ফেলছে এরি মধ্যে। অপসারনের ফলে নগরীতে যানজটও কমেছে কিছুটা। তবে জনগনের ভোগান্তিও বেড়ে অনেকাংশে।

বিকল্প পরিবহনের বিষয়টি ভাবার প্রয়োজন ছিল ট্রাফিক বিভাগের। হঠাৎ করে অপসারন করার আগে বিকল্প ব্যবস্থা নেয়ার প্রয়োজনীয়তার কথা জানান অনেক নগরবাসি। দিনেদিন নগরীতে বাড়ছে জনসংখ্যা। তাদের চলাচলের জন্য চাহিদা বাড়ছে যানবাহনের। সে সুযোগে অবৈধ মোটরচালিত রিকশাটি দখল করে নিয়েছিল পুরো নগরী। প্রয়োজনের তুলনায় কিছুটা বেশী বৈকি। তবে শুরুতে লাগাম টেনে ধরলে হয়ত প্যাডেল চালিত রিকশায় নগরবাসি অব্যস্ত হয়ে যেত। কেননা দেশের অধিকাংশ শহরে মোটরচালিত রিকশা চলাচল করতে দেয়া হয় না। 

এ ব্যাপারে নগরবাসির প্রতিক্রিয়াঃ রাজগঞ্চ বাজারের এলপি গ্যাস ব্যাবসায়ী এমদাদুল হক দিপু জানান, জনগনের দুর্ভোগের কথা বিবেচনা করে বিকল্প ব্যাবস্থা নিয়ে তারপর মোটরচালিত রিকশা বন্ধ করা দরকার ছিল। হঠাৎ করে বন্ধের কারনে বিপাকে পড়েছে সাধারন মানুষ।
পুরাতন চৌধুরী পাড়ার মুন্সি আর্ট প্রেসের পরিচালক জাহাঙ্গীর আলম মুন্সী মনে করছেন, এতে গরীবের পেটে লাথ্থি মারা হ্েচছ। তিনি প্রশ্ন রেখে বলেন,শুরুতে যখন মোটরচালিত রিক্শা বের হলো তখন কেন বন্ধ করার ব্যাবস্থা নেয়া হলো না। হাজার হাজার টাকা খরচ করার পর এখন কেন বন্ধ করা হলো। এছাড়া স্বল্প আয়ের মানুষের কথাও বিবেচনা করা দরকার।
একটি বেসরকারী প্রতিষ্ঠানে চাকুরীরত আবদুল বারেক ক্ষোভের সাথে জানান,দুদিনে ভাড়া দ্বিগুন বেড়ে গেছে। এই বাড়িতি টাকাটা আমার আসবে কোথা থেকে।
তবে বেশীর ভাগ নগরবাসি মনে করেন বিকল্প ব্যাবস্থা না নিয়ে অপসারন করাটা ঠিক হয়নি। তারা এ যানটি থেকে মুক্তি চান তবে তাদের চলাচল ব্যাবস্থা ঠিক রেখে। 


 

Last modified on 15-11-2016 08:15:56 PM

দারোগা বাড়ি, উত্তর চর্থা
কুমিল্লা-৩৫০০, বাংলাদেশ
ই-মেইল: bdcomillanews24@gmail.com
নিউজ রুম: +8801976530514

প্রধান সম্পাদকঃ হুমায়ূন কবির রনি
নিউজরুম এডিটরঃ তানভীর খন্দকার দীপু
ই-মেইলঃ editor@comillanews24.com